~~|| ||আদ-দ্বীন আল-ইসলাম ওয়েব সাইটে আপনাকে স্বাগতম|| ||~ ~* * * “হে ঈমানদারগণ! তোমরা আল্লাহ এবং তাঁর রাসূলের অগ্রে কোন কিছু প্রাধান্য দিও না, আল্লাহকে ভয় কর। নিশ্চয় আল্লাহ সবকিছু শুনেন ও জানেন। ” [সূরা আল হুজরাত : ১] * * * “অতঃপর তোমার রবের কসম তারা কখনও ঈমানদার হতে পারবে না, যতক্ষণ না তাদের মধ্যে সৃষ্ট বিবাদের ব্যাপারে তোমাকে ফায়সালাকারী হিসাবে মেনে নেয়, অতঃপর তোমার ফায়সালার ব্যাপারেও তারা কোন রকম সংকীর্ণতা পাবে না এবং তা হৃষ্টচিত্তে কবূল করে নিবে।” [সূরা নিসা : ৬৫] * * * “যদি তোমরা কোন বিষয়ে বিবাদে প্রবৃত্ত হয়ে পর, তাহলে আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের প্রতি প্রত্যার্পণ কর যদি তোমরা আল্লাহ ও কিয়ামত দিবসের প্রতি বিশ্বাসী হয়ে থাক। আর এটাই কল্যাণকর এবং পরিণতির দিক দিয়ে উত্তম।” [সূরা নিসা : ৫৯] * * * সাহাবী আবু হুরায়রা (রা:) হতে বর্ণিত, তিনি বলেন : রাসূলুল্লাহ (সা:) বলেন : “তোমাদের মাঝে দু’টি বিষয় রেখে গেলাম যতক্ষণ সে দু’টি আঁকড়ে ধরে থাকবে কখনও পথভ্রষ্ট হবে না, আল্লাহ তা’আলার কিতাব ও আমার সুন্নাত”। [মুয়াত্তা ইমাম মালিক-হা: ১৩৯৫, হাকিম-সহীহ হা: ২৯১] * * * ||কাজ চলছে... অনুগ্রহ করে অপেক্ষা করুন|| ||~~

প্রশ্নোত্তর

আপনার নেটওর্য়াকে শেয়ার করুনTweet

{ Comments on this entry are closed }

আপনার নেটওর্য়াকে শেয়ার করুনTweet

{ Comments on this entry are closed }

আপনার নেটওর্য়াকে শেয়ার করুনTweet

{ 0 comments }

আপনার নেটওর্য়াকে শেয়ার করুনTweet

{ 0 comments }

আপনার নেটওর্য়াকে শেয়ার করুনTweet

{ 0 comments }

শাব্দিক অর্থে ‘আহলে হাদীস’ বলতে বুঝায় হাদীসওয়ালা বা হাদীসের অনুসারী। এখানে ‘হাদীস’ বলতে ইসলামের পরিভাষাগত ‘হাদীস’ নয়। বরং রায়, বিদআত ও বাতিলের বিপরীতে ‘সুন্নাহ’ কেই বুঝান হয়েছে। কুরআন ও হাদীস বা রাসূলুল্লাহর (সঃ) জীবন পদ্ধতিকে সাধারণ অর্থে সুন্নাহ বলা হয়ে থাকে। তাই সঙ্গত কারণেই ‘আহলে হাদীস’ অর্থ হচ্ছে কুরআন হাদীসের অনুসারী। আর পারিভাষিক অর্থে আহলে [...]

{ 0 comments }

পৃষ্ঠা নম্বর ১ | সর্বমোট পৃষ্ঠা ১৫...১০...শেষ পৃষ্ঠা »